শালিখার বুনাগাতী মতিয়ার রহমান প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের সভাপতির বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ

বাবুল মোস্তফা, শালিখা প্রতিনিধি॥ মাগুরার শালিখা উপজেলার বুনাগাতী মোঃ মতিয়ার রহমান বিশেষ শিক্ষা প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান এর বিরুদ্ধে দূর্নীতি,অনিয়ম,স্বজনপ্রীতি ও নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ সংবাদ সম্মেলন করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার শালিখা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রিয়াজুর রহমান লিখিত অভিযোগে বলেন, ২০১৪ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান তখন থেকে আমাদের কাছ থেকে ৭/৮ লক্ষ করে টাকা নিয়ে নিয়োগ প্রদান করেন।
নিয়োগের পর থেকে আমরা শিক্ষকবৃন্দ খুবই দক্ষতার সাথে ক্লাস পরিচালনা করে আসছি। এমনকি নিয়োগের টাকা ছাড়াও বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য আমরা সকলে নিজস্ব তহবিল থেকে টাকা দিয়ে বিদ্যালয়ের নিজস্ব ২১.৩৩ শতক জমি ক্রয় করেছি। পাশাপাশি ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোঃ গফুর বিশ্বাস তার নিজেস্ব তহবিল থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকায় প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য একটি গাড়ি ক্রয় করেছেন। এভাবেই শিক্ষকবৃন্দ তাদের নিজ অর্থায়নে বিদ্যালয়ের সম্পত্তি কিনেছেন। দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর বিদ্যালয়ের জন্য বিনা সার্থে শ্রম দিয়ে চলেছেন।
এ পর্যন্ত কোন প্রকার বেতন ভাতা পায়নি। বিদ্যালয়ের নামে সরকারি-বেসরকারি যে সম্স্থ অর্থ অনুদান এসেছে সেই সমস্থ অর্থ বিদ্যালয়ের সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান লুটেপুটে খেয়েছেন। আমরা প্রতিবাদ করলেই আমাদের চাকুরী থেকে বাদ দেওয়ার ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছেন। এমনকি ওই বিদ্যালয়ের সভাপতি মতিয়ার রহমান,তার স্ত্রী সহসভাপতি এবং যে ১৮ জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগ হয়েছে তার মধ্যে বেশির ভাগই তার পরিবার পরিজন ও নিজেস্ব আত্মীয় স্বজন। বিষয়টি নিয়ে আমরা শিক্ষকবৃন্দ প্রতিবাদ করাই আমাদেকে জড়িয়ে মাগুরা আদালতে একটি মিথ্যা ভিত্তিহীন ও বানোয়াট মামলা দিয়েছে। তিনি মামলা দিয়েই ক্ষ্যান্ত হয়নি শুনা যাচ্ছে এখন আমাদেরকে বিদ্যালয় থেকে বাদ দিয়ে পূনরায় আবার মোটা অংকের টাকার বিনিময় নতুন করে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার পায়তারা চালাচ্ছে।
অভিযোগে শিক্ষকবৃন্দ আরো উল্লেখ করেন আমরা ২০১৪ সাল থেকে যে সম্পত্তিতে বিদ্যালয় পরিচালনা করে আসছি সেই সম্পত্তি সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমানের শশুরের জায়গা। এখন আমরা শিক্ষকবৃন্দ আমাদের নিজেস্ব তহবিল থেকে টাকা দিয়ে বিদ্যালয়ের উন্নয়নের সার্থে ২১.৩৩ শতক জমি কিনেছি। এই জায়গায় আমরা বিদ্যালয়ের ভবন করতে চাইছি। কিন্তু সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান তাতে বাধা প্রদান করছে। বিষয়টি নিয়ে আমরা স্থানীয় চেয়ারম্যান বক্তিয়ার উদ্দিন লস্কর ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেছি। অভিযোগের পর সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান চেয়ারম্যান বক্তিয়ার উদ্দীন লস্করসহ উপজেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে নানা মিথ্যা অভিযোগ ও তালবাহানা করে কিছু অনলাইন পত্রিকার সাংবাদিক দিয়ে ভুয়া সংবাদ পরিবেশন করে চলেছেন। এখানেই শেষ নয় মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে বিদ্যালয় বন্ধ থাকাকালিন সময়ে শিক্ষকবৃন্দকে বিদ্যালয় থেকে বাদ দেওয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়ে সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষকদের নিয়োগ পত্র ও যোগদান পত্রসহ স্কুলের সমস্থ কাগজপত্র এবং সিল আত্মসাৎ করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বুনাগাতী মোঃ মতিয়ার রহমান বিশেষ শিক্ষা প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রিয়াজুর রহমান,সহকারি শিক্ষক রোজিনা খাতুন, ইতি বিশ্বাস, গফুর বিশ্বাস, সুব্রত রায়, মাজাহারুল ইসলাম, দিপায়ন হালদার, শারমিন আক্তার, নাজমা খাতুন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *