লকডাউন নড়বড়ে : করোনায় যশোরের পরিস্থিতি ভয়াবহতার দিকে যাচ্ছে

সানজিদা আক্তার সান্তনা, যশোর শহর প্রতিনিধি : নড়বড়ে লকডাউনের ফলে করোনায় যশোরের পরিস্থিতি ভয়াবহতার দিকে যাচ্ছে । সংক্রমণের হার বাড়ছে উদ্বেগজনক হারে। লাফিয়ে লাফিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও মানুষের চলাফেরায় কোন বিধিনিষেধ দেখা যাচ্ছে না। সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে গেলো দু’দিনে যশোরে সর্বোচ্চ রোগী শনাক্ত হয়েছে। ৬ জুন শনাক্ত একশ’ ৫ জন ও ৭ জুন শনাক্ত হয়েছে আরও একশ’ ৪জন। মাত্র এই দু’দিনে আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ২শ’৯জন।

সংক্রমণ ব্যাপক হারে বেড়ে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। সরকারি আরোপিত বিধি নিষেধ পালনে জনগণের উদাসীনতায় মহা বিপর্যয়ের আশংকাও করা হচ্ছে। তবে স্বস্তির খবর হচ্ছে নতুন করে প্রাণহানীর ঘটনা নেই।

সোমবার ৭জুন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারতফেরত দু’জনসহ নতুন করে আরও একশ’ ৪জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। রোববার রাতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারের ল্যাবে ভারত ফেরত ৫৮জনসহ যশোরের আটটি উপজেলার দু’শ’ ৩৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ভারতফেরত ৩৬ ও ৫৪ বছর বয়সী দু’জন পুরুষসহ ৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। খুলনা মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে পাঁচটি নমুনা পরীক্ষার ফলাফল এসেছে। তাতে দু’জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে।

এছাড়াও যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪০ জনের মধ্যে ২০জন ও অন্যান্য স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষায় ৩০ জনের মধ্যে ১৮জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। অর্থাৎ সোমবার যশোরে মোট করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে একশ’ চারজন। প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারত ফেরত যে দু’জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে তাদের যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার পর্যন্ত নতুন দু’জনসহ ভারতফেরত ৩৩জনের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেলো।

সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন উপরোক্ত তথ্য নিশ্চিত করেছে। তিনি আরও জানান, সোমবার শনাক্ত হওয়া রোগীদের মধ্যে যশোর সদর উপজেলার বাসিন্দা রয়েছেন ৬২জন। এর মধ্যে পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকায় বসবাসরত রয়েছেন ৩৪জন। প্রত্যেক রোগীর ব্যাপারে স্বাস্থ্য বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খোঁজ নেয়া হচ্ছে। তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। টেলিমেডিসিন দেয়ার জন্য সার্বক্ষণিক ডাক্তার নিয়োজিত করা আছে। বাড়িতে আইসোলেশনে থাকা কোনো রোগীর অবস্থা গুরুতর হলে হাসপাতালে আনার জন্য জরুরি অ্যাম্বুলেন্সসহ চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সিভিল সার্জন আরও জানিয়েছেন, যশোরে এ যাবত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে সাত হাজার চারশ’ ৪০ জন। সোমবার পর্যন্ত হাসপাতালে ৫৬জন ও হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছেন ছয়শ’ ৬৩জন। সুস্থ হয়েছেন ছয় হাজার ছয়শ’ ৩৯জন। করোনায় এ পর্যন্ত প্রাণ কেড়েছে ৮২জনের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *