ভূবন শুন্যতা, টিনশেডের বেড়াজালে আজও আবদ্ধ পাশাপোল ইউনিয়ন পরিষদ

চৌগাছা প্রতিনিধিঃ যশোরের চৌগাছার ২ নং পাশাপোল ইউনিয়ন পরিষদ ভবন শূন্যতায় আছে। পুরাতনকে ছুড়ে নতুন ভবনের অপেক্ষায় থেকে আজও নির্মিত হয়নি তা। ফলে প্রস্তাবিত জমিতে টিনসেড দিয়ে কোনরকম শুরু হয়েছিলো পরিষদের কার্যক্রম এবং আজও সেভাবেই চলছে।

এই অবস্থায় ইউনিয়নে স্থানীয় সরকারের বহুবিধ কার্যক্রম চালাতে হিমিশিম খাচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা। স্থানীয়রা জানিয়েছেন পরিষদের জমি সংক্রান্ত মামলার জটিলতার কারনে ভবন নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। এদিকে আইনগত জটিলতা নিরসন পূর্বক বিষয়টি খতিয়ে দেখে দ্রুত পরিষদের ভবন নির্মানের দাবী জানিয়েছেন ইউনিয়নবাসিসহ সংশ্লিষ্টরা।
উপজেলার প্রাণ কেন্দ্র থেকে দক্ষিণ-পূর্ব কোণে ২ নং পাশাপোল ইউনিয়নের অবস্থান। পাশাপোল ইউনিয়নটি ঝিকরগাছা থানার অন্তর্গত ছিল। ৩৩টি গ্রাম নিয়ে গঠিত এই ইউনিয়নের তখন নাম ছিল ফুল পাশাপোল ইউনিয়ন। ১৯৭৭ সালে চৌগাছা থানা গঠনের পর ইউনিয়নকে ভেঙ্গে দুটি ইউনিয়ন করা হয়। তা হলো ১ নং ফুলসারা ও ২ নং পাশাপোল ইউনিয়ন। বর্তমানে পাশাপোল ইউনিয়ন ১৭টি গ্রাম নিয়ে গঠিত। গ্রামগুলো হচ্ছে পাশাপোল, বানুরহুদা, পলুয়া, বাড়িয়ালী, বুড়িন্দীয়া, রঘুনাথপুর, মৎস্যরাঙ্গা, দশপাখিয়া, হাউলী, দুড়িয়ালী, মালীগাতী, রানীয়ালী, সুরেশ্বাসকাটি, বড়গোবিন্দপুর, গোবিন্দপুর, কালিয়াকুন্ডি ও বিল এড়োল। ইউনিয়নের আয়োতন ২৫.৯৬ কি:মি: এবং লোকসংখ্যা-২২২৬৮ হাজার।
ইউপি সদস্য ও দশপাখিয়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুস সালাম, সাবেক ইউপি সদস্য মহাদেব বাবু, মুক্তিযোদ্ধা নূর ইসলামসহ স্থানীয় অনেকে জানান, ইউনিয়ন পরিষদের স্থান নিয়ে অনেক আগে থেকেই ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের মধ্যে মতোবিরোধের ফলে মামলা চলছে। আর তারই ফল আজকের এই অবস্থা। প্রাক্তন চেয়ারম্যান মাওলানা কাদের সাহেবের আমল থেকে চলছে এই মামলা। সে সময় এই মামলা হাইকোর্টে চলেগিয়েছিলো। কিন্তু হাইকোর্ট তা ব্যাক দিয়েছিলো নিম্ন আদালতে। পুনরায় স্বাক্ষী প্রেরণসহ আদালতে কাগজাদি প্রেরণ করার কথা থাকলেও সে সময় নির্বাচন সামনে থাকায় কেউ এগিয়ে আসেনি। পরবর্তীতে বাড়িয়ালীর শাহিন সাহেব চেয়ারম্যান হবার পরে তিনি তাদের পক্ষে স্বাক্ষী প্রেরণ করে। তখন থেকে মামলা সেই অবস্থায় আছে। সমাধান হয়নি। বর্তমানে অবাইদুল ইসলাম সবুজ চেয়ারম্যান হয়ে তিনি চেষ্টা চালাচ্ছেন এর একটি সমাধান হোক। তা নাহলে ভবন সংকটে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রমের সমস্যা হচ্ছে।
আরও জানা যায় বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের স্থান নিরসন মামলায় হাউলি, বাড়িয়ালী এবং দুড়িয়ালী একপক্ষে এবং ইউনিয়নের বাকি সকল গ্রাম অপরপক্ষে কাজ করছে। তবে বর্তমান প্রস্তাবিত জমিতে টিনসেড নির্মিত ইউনিয়ন পরিষদ ভবনটি পাশাপোল মৌজায় দশপাখিয়া বাজারে অবস্থিত। আজও ভবনের অভাবে বাজারের ঘর ভাড়া করে ভবনের অভাব দূর করা হয়। এমতবস্থায় এলাকাবাসীসহ সংশ্লিষ্টরা সমস্যা নিরসন পূর্বক পাশাপোল ইউনিয়ন ভবন নির্মাণ করার দাবী জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *