বেনাপোলে বলাৎকারে র্ব্যথ হয়ে মাদ্রাসা ছাত্রকে খুন

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের শার্শায় সেই মাদ্রাসা ছাত্রের হত্যার সাথে যুক্ত থাকার অভিযোগে পলাতক মাদ্রাসা শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ।

শার্শা থানার উপ-পরিদর্শক মামুনুর রশিদ বলেন, মঙ্গলবার রাতে খুলনা জেলার দিঘলিয়া আরাবিয়া কওমী মাদ্রাসা থেকে হাফিজুর রহমানকে আটক করা হয়।

আটক হাফিজুর যশোরের শার্শা উপজেলার গোগা গাজিপাড়া গ্রামের মুজিবর রহমান মোল্যার ছেলে। সে বেনাপোলের কাগজপুকুর খেদাপাড়া হিফজুল কোরআন মাদ্রাসা ও এতিমখানার শিক্ষক ও মসজিদের ইমাম।

নিহত ওই কিশোরের নাম শাহ পরান (১২)।সে শার্শার কাগজপুকুর গ্রামের শাহাজান আলির ছেলে ।

শার্শা থানার ওসি এম মসিউর রহমান গ্রামের সংবাদকে বলেন, ২জুন রোববার সন্ধায় যশোরের শার্শা উপজেলার কাগজপুকুর খেদাপাড়া হিফজুল কোরআন মাদ্রাসা ও এতিমখানার শিক্ষক হাফিজুর রহমানের গ্রামের বাড়ির ঘরের খাটের নিচে থেকে শাহ-পরান (১২) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রের অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করা হয় ।
ঘটনার পর থেকে হাফিজুর পলাতক ছিল । গোপন সংবাদ পেয়ে মঙ্গলবার রাতে খুলনা জেলার দিঘলিয়া আরাবিয়া কওমী মাদ্রাসা থেকে হাফিজুরকে আটক করা হয়।

জিঞ্জাসাবাদে হত্যার সাথে যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছেন জানিয়ে মামুনুর রশিদ বলেন, রোজার মধ্যে তারাবি নামাজ শেষে মাদ্রাসায় নিজ কক্ষে ওই শিশুকে হাফিজুর ‘মাথা টিপে’ দেওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে যায়।পরে জোর পূর্বক তাকে বলাৎকারের চেষ্টায় ব্যার্থ হয়ে পরদিন কৌশলে বুঝিয়ে তাকে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে নির্যাতন করে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ খাটের নিচে লুকিয়ে রেখে আত্নগোপনে যায় ।
ওসি এম মসিউর রহমান বলেন, বুধবার দুপুরে তাকে যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *