পল্লী বিদ্যুতের (সমিতি-২) এজিএম করোনা আক্রান্ত

মণিরামপুর(যশোর)অফিস॥ যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ (মণিরামপুর) সদর দপ্তরের রাজগঞ্জ উপকেন্দ্রের এজিএম করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। একই সাথে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এক এনজিও কর্মী।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) সকালে যশোর সিভিল সার্জন অফিস থেকে এমন তথ্য আসে। এরআগে মণিরামপুরে সর্বশেষ করোনা রোগী ধরা পড়ে গত ২৫ মে। আক্রান্ত দুই জনের মধ্যে এজিএম ছয় মাস ধরে রাজগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে কর্মরত আছেন। আর চাঁদপুর জেলায় একটি এনজিওতে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি উপজেলার কাশিপুর গ্রামে। কর্মস্থলে থাকতেই তিনি জ্বরে আক্রান্ত হয়ে সেখানে নমুনা দেন।

ফলাফল না পেয়ে তিনি মণিরামপুর হাসপাতালে এসে আবারো নমুনা দেন। মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. শুভ্রা রানী দেবনাথ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ডা. শুভ্রা বলেন, গত ৭ জুন জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসেন রাজগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের এজিএম । একই দিন কাশিপুর গ্রামের এক এনজিও কর্মী হাসপাতালে আসেন। ওই দিন তাদেরসহ ছয় জনের নমুনা সংগ্রহ করে সিভিল সার্জন অফিসের মাধ্যমে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে পাঠানো হয়। আজ (বৃহস্পতিবার) দুই জনের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে।

ডা. শুভ্রা বলেন, আক্রান্ত এজিএম ও এনজিও কর্মী দুই জনই এখন সুস্থ আছেন। তারা নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নেবেন।

পল্লী বিদ্যুতের আক্রান্ত কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে বলেন, হাসপাতালে নমুনা দেওয়ার পর থেকে আমি বাসায় আলাদা কক্ষে থাকছি। জ্বরের পর ৮ জুন কিছুটা কাঁশি ছিল। এখন সুস্থ আছি।

যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ (মণিরামপুর) সদর দপ্তরের পরিচালক অরুন কুমার কুণ্ডু বলেন, হাসপাতালে নমুনা দেওয়ার দিন থেকে এজিএম বাসায় কোয়ারেন্টাইে আছেন। তার স্থানে অন্য লোক দেওয়া হয়েছে। এই মূহুর্তে রাজগঞ্জ উপ-কেন্দ্র লকডাউনের কোন সিদ্ধান্ত নেই।

এই পর্যন্ত মণিরামপুরে ১৯০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তারমধ্য ১৩ জনের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে। যাদের অনেকেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *