নির্বাচনে হেরে শার্শায় শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা

স্টাফ রিপোর্টার : নির্বাচনে হেরে গিয়ে যশোরের শার্শায় শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বাড়ির প্রধান গেট ভাঙলেও ঘরের আরেকটি গেট ভাঙতে না পারায় এ যাত্রায় প্রাণে বেঁচে গেছে শহীদ পরিবারের লোকজন। হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায় দুর্বৃত্তরা।

ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) রাতে শার্শা উপজেলার উলাশী ইউনিয়নের কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামে। এ ঘটনায় শার্শা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন শহীদ আফতাব উদ্দিনের ছোট ভাই ছাদেকুর রহমান।

ছাদেকুর রহমান জানান, ২৮ নভেম্বরের আমাদের ওয়ার্ডে নির্বাচনে অংশ নেন দুই মেম্বার প্রার্থী আলহাজ¦ আলাউদ্দিন আলা ও সামছুর রহমান। নির্বাচনে আলহাজ্ব আলাউদ্দিন আলা বিজয়ী হন। পরাজয়ের পর সামছুর রহমান হৃদরাগে আক্রান্ত হন। তাকে যশোর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩০ নভেম্বর মারা যান সামছুর রহমান। তার মৃত্যুতে সামছুর রহমানের পরিবার থেকে কোন অভিযোগ না থাকলেও নির্বাচনে আমরা আলাউদ্দিনের পক্ষ নেওয়ায় ওই রাত সাড়ে ১০টার দিকে সামছুর রহমানের সমর্থক ওই গ্রামের কুরবান আলী মাস্টারের ছেলে মেহেদী হাসান, তার পুত্র তারিক, বজলুর রহমানের ছেলে শরীফ ও তৌফিক, জিল্লুর রহমানের পুত্র আশিক ও মারুফ এর নেতৃত্বে ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। বাড়ির প্রধান গেট ভাঙলেও ঘরের আরেকটি গেট ভাঙতে না পারায় তারা ছাদে ওঠে বাড়িতে ঢোকার চেস্টা চালায়। এ যাত্রায় শহীদ পরিবারের লোকজন প্রাণে বেঁচে গেলেও হুমকি দিয়ে যায় আবার আসবো তোকে মার্ডার করতে। এ ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে শহীদ পরিবারটি। এ ঘটনায় বুধবার (১ ডিসেম্বর) নাভারন সার্কেলের এএসপি ও শার্শা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ছাদেকুর রহমান।
অন্য দিকে শহীদ আফতাব উদ্দিনের ছোট ভাই আনিছুর রহমান বর্তমানে জার্মানিতে থাকেন। বাড়িতে হামলার খবর শুনে তার অবস্থা ও খারাপ। এ ঘটনা জানার পরে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার জার্মানির এক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। জানিনা তিনি এখন কি অবস্থায় আছেন। তার পরিবারের সুরক্ষার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের সকলকে অনুরোধ করেছেন ভুক্তভোগী ছাদেকুর রহমান।
এ ব্যাপারে শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম খান জানান, এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত চলছে। তদন্তে প্রমাণিত হলে অবশ্যই মামলা রেকর্ড হবে এবং দোষীদের আইনে আওতায় আনা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *