একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রখ্যাত লোককবি বিজয় সরকারের ১১৭তম জন্মবার্ষির্কী আজ

নড়াইল প্রতিনিধি ॥ একুশে পদকপ্রাপ্ত উপমহাদেশের প্রখ্যাত লোককবি কবিয়াল বিজয় সরকারের ১১৭তম জন্মবার্ষিকী আজ (বুধবার)।জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে চারণ কবি বিজয় সরকার ফাউন্ডেশন ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ৪দিনব্যাপী জন্মজয়ন্তী উৎসব পালিত হবে।
জন্মজয়ন্তী উদযাপন পর্ষদ সূত্রে জানা যায়, ১১৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বৃধবার সকালে কবির প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, প্রঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন,নগরকীর্তন, প্রসাদ বিতরণ, বিজয়গীতি, আগামিকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা,দুপুর ১২টায় কবি বিজয় সরকারের জীবনী নিয়ে আলোচনা,বিজয়গীতি,২২ ফেব্রুয়ারি বেলা ৩টায় বিজয়গীতি, ২৩ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) কবির জন্মভিটা সদর উপজেলার ডুমদীতে অনুষ্ঠিত হবে দিনব্যাপী লোকউৎসব,বিজয়গীতি,জারিগান ও বিজয় ভক্তদের মিলন মেলা।বিজয় সরকার ফাউন্ডেশন ও উদযাপন কমিটির আয়োজনে দিন ব্যাপী এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান, উদযাপন পর্ষদের প্রচার উপ-কমিটির আহবায়ক সুলতান মাহমুদ।উৎসব সফল করতে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশের বরেণ্য কবি,সাহিত্যিক,গবেষক ও লোকজ সংষ্কৃতির পুরোধাগন অংশগ্রহণ করবেন বলে তিনি জানান।
অসাম্প্রদায়িক চেতনার সুরস্রষ্টা, গীতিকার ও গায়ক, চারণকবি বিজয় সরকার ১৯০৩ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি নড়াইল সদর উপজেলার বাঁশগ্রাম ইউনিয়নের ডুমদি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।তার বাবার নাম নবকৃষ্ণ অধিকারী এবং মার নাম হিমালয়া দেবী। তার শৈশবকাল এবং জীবনের বেশির ভাগ সময় কেটেছে প্রিয় জন্মভূমি ডুমদিসহ নড়াইলের বিভিন্ন এলাকায়।ছেলেবেলা থেকেই তিনি (বিজয় সরকার) কবিতা, গান রচনা ও সূরের মধ্যে ডুবে থাকতেন। তিনি একাধারে গানের রচয়িতা ও সুরকার।পোষা পাখি উড়ে যাবে সজনী/ একদিন ভাবি নাই মনে…। এই পৃথিবী যেমন আছে/ তেমনি ঠিক রবে/ সুন্দর এই পৃথিবী ছেড়ে/ একদিন চলে যেতে হবে…। তুমি জানো নারে প্রিয়/ তুমি মোর জীবনের সাধনা’…এ ধরনের অসংখ্য জনপ্রিয় গানের স্রষ্টা ছিলেন তিনি।তিনি প্রায় এক হাজার ৮০০ গান রচনা করেছেন।
তিনি অনেক ইসলামী গান ও কবিতা রচনা করেন। প্রকৃত নাম বিজয় অধিকারী হলেও সুর, সঙ্গীত ও অসাধারণ গায়কী ঢঙের জন্য তিনি চারণকবি ও ‘সরকার’ উপাধি লাভ করেন।১৯৮৫ সালের ৪ ডিসেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কেউটিয়ার তার মৃত্যুর হয়।সেখানেই তাকে সমাহিত করা হয়।শিল্পকলায় অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ ২০১৩ সালে একুশে পদকে (মরণোত্তর) ভূষিত হন উপমহাদেশের প্রখ্যাত এই চারণ কবি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *