আলমডাঙ্গায় স্মৃতি স্তম্ভ নির্মান কল্পে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নির্বাহী অফিসারের মতবিনিময়

আলমডাঙ্গা অফিসঃ আলমডাঙ্গায় মুক্তিযুদ্ধ কালিন স্মৃতি স্তম্ভ নির্মান কল্পে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নির্বাহী অফিসারের মতবিনিময় সভা অনুষ্টিত হয়েছে। সকাল ১০টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ লিটন আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আলমডাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আইয়ুব হোসেন। এ সময় মুক্তিযুদ্ধ কালিন কোথায় কোথায় মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়েছেন, সেই জায়গা চিহ্নিত করতে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছ থেকে নাম চাইলে, হাটবোয়ালিয়া ঘাটে সর্বপ্রথম ৬ জনকে পাক সেনারা গুলি করে হত্যা করে।সেই হত্যা কান্ডে সম্ভবত আলমডাঙ্গায় প্রথম শহীদ হন। এর পর সুকচা  বাজিতপুরে ১৩ আগষ্ট খন্দকার জামসেদ নুরী টগর পাক সেনাদের সাথে যুদ্ধ করতে গিয়ে শহীদ হন। এছাড়াও আনছার আলী, সৈয়দ তালাত মাহমুদ, খন্দকার আশরাফ আলী আশু, আবুল হোসেন নান্নু মোল্লা, ডাক্তার বজলুল হকসহ প্রায় ২২ থেকে ২৩ জন মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধে সহযোগীতা করায় শহীদ হয়েছেন। গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গনপুর্ত মন্ত্রনালয়, এলজিআরডি মন্ত্রনালয় যৌথ ভাবে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ দের স্মৃতি রক্ষার্থে প্রত্যেক জায়গায় স্মৃতি স্তম্ভ নির্মান করবেন। আগামী প্রজন্ম যেন মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভুলে না যান সেই জন্য সরকার এই ব্যাবস্থা হাতে নিয়েছেন । আলোচনায় অংশ নেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ শাহাবুদ্দিন, সাবেক কমান্ডার শফিউর রহমান জোয়ার্দার সুলতান, আব্দুল কুদ্দুস, আলহাজ শেখ নুর মোহাম্মদ জকু, আবুল কাশেম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মইনদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মনীন্দ্র নাথ দত্ত, সাবেক পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা এম সবেদ আলী,বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃআব্দুর রশিদ মোল্লা, মোঃ খোসদেল আলম, আব্দুল মালেক, খন্দকার ইসমাইল হোসেন, উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুর রশিদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মারজাহান নিতু, প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, সম্পাদক হামিদুল ইসলাম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *