লিবিয়ায় নিহত রকির বাড়িতে শোকের মাতম

আসাদুজ্জামান আসাদ : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার ওই যুবককে অন্য ৩৭ জনের সাথে মুক্তিপণের দাবিতে অপহরণ করার ১২দিন পর হত্যা করা হয়েছে বলে তার স্বজনরা জানিয়েছেন।

১২দিন আগে লিবিয়ার মানব পাচারকারীদের একটি দল ৩৭জন বাংলাদেশিকে অপহরণ করে।

নিহত রাকিবুল হাসান রকি(২০) যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার খাটবাড়িয়া গ্রামের ইস্রাইল হোসেন জনকির ছেলে। রাকিবুল হাসান রকির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লিবিয়া প্রবাসী তার চাচাতো ভাই ফিরোজ আহমেদ।

রকিবের বাবা ইস্রাইল হোসেন তার ভাইপো ফিরোজের বরাত দিয়ে গ্রামের সংবাদকে বলেন, মিজদা শহরে ১২ দিন জিম্মি থাকার পর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বাংলাদেশি সবাই তাদের উপর চড়াও হয়ে তাদের চারজনকে পিটিয়ে মেরে ফেলে। এতে অপহরনকারিদের একজন এলোপাতাড়ি গুলি করে এসময় রকিসহ ২৬ জন্য নিহত হয়।১১জন আহত হয়। তাদেরকে জিনতানের একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে এবং মাদারীপুরের ১ জন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

দুই ভাই দুই বোন সাথি(২৬) ও বিথীর (২৪) ছোট রকি এবার এইচএসসি পরীক্ষায় বসতো।সুযোগ পাওয়ায় ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটাতে দালাল মারফত তিন মাস আগে লিবিয়ায় যায়।

ইস্রাইল হোসেন বলেন,তাদেরকে অপহরন করার পর মুক্তিপণ হিসেবে ১০লাখ টাকা দাবি করা হয়। প্রতিনিয়ত তাদের নির্যাতন করা হতো।চাপ দেওয়া হতো বাড়ি থেকে টাকা পাঠানোর জন্য। ছেলের আহাজারি শুনে আমরা খুব কষ্ট করে চার লাখ টাকা জোগাড় করি কিন্তু শুক্রবার তার মৃত্যুর খবর শুনতে হলো।

এদিকে রাকিবের মৃত্যুর খবর বাড়িতে পৌছালে সবাই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।রাকিবের মা মাহিরন নেছা ছোট ছেলের মৃত্যুর সংবাদে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন।প্রতিবেশিরাও শতচেষ্টা করেও তাকে শান্ত করতে পারছেন। শেষ বারের মত ছেলের মুখটি দেখার জন্য আকুতি তার স্বজনদের।

মা মাহিরন নেছা প্রলাব বকছে আর বলছে,সহায় সম্বল বেচে দিনাদায়েক হয়ে তুই বাবা গেলি লিবিয়ায়। আমাদের অভাবের সংসারে সুখ কিনতি গেলি। তোর এমন পরিনতি হবে তা কী আমরা ভেবেলাম!তালি কী আর পাঠাতাম।

রকির বড় ভাই সোহেল রানা (২৮) বলেন, আমরা সরকারের কাছে ভায়ের লাশটি ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *