রাজগঞ্জে রোপা-আমনের সবুজের অপরুপ সমাহার

বিল্লাল হোসেন : যেদিকেই চোখ যায় শুধু সবুজের সমাহার। রোপা-আমন ফসলের মাঠ যেন সবুজ চাঁদরে পরিপূর্ণ। চারিদিকে এক নয়নাভিরাম দৃশ্য। কৃষকের মনে দোলা দিচ্ছে এক ভিন্ন আমেজ। মাঝে মধ্যে বৃষ্টিপাত হলেও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় শস্য ভান্ডার বলে খ্যাত যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জে এবারও রোপা-আমনের বাম্পার ফলন হবে বলে কৃষকরা আশা করছেন। গত রোপা-আমন মৌসুমেও ধানের বাম্পার ফলন হয়েছি।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাযায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়ন মিলে এবার ২২ হাজার ৬ শত হেক্টর জমিতে রোপা-আমন ধান চাষ করা হয়েছে। এরমধ্যে স্বর্ণা-৫, রনজিত, পায়জাম, হাইব্রিট, ব্রি-ধান-১১, ৩৪, ৪৯. ৬২সহ বেশ কয়েক জাতের আমন ধান রোপন করা হয়।
গত বছরের তুলনায় চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত আমন ক্ষেতে তেমন কোন রোগবালাই দেখা দেয়নি। ইতি মধ্যে অনেক ধানগাছ থেকে মোচা বের হতে শুরু করেছে। রোপা-আমন ধানগাছ ভাল রাখতে ও ধানের উৎপাদন বাড়াতে কৃষি কর্মকর্তা ও উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তাগনের পরামর্শে রোগ বালাইনাশক ঔষধ প্রয়োগসহ সার্বক্ষনিক জমিতে পরিচর্যা করছেন কৃষকরা।
রাজগঞ্জের চাকলা গ্রামের কৃষক মিজানুর রহমান, ঝাঁপা গ্রামের সুনিল চন্দ্র, হানুয়ার গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমসহ অনেকেই জানান, সবুজে ঘেরা রোপা-আমনের মাঠ দেখে যেন এক মূহুর্তের জন্যেও বিশ্রাম নেয়ার ফুরসত নেই। যেদিকে চোখ যায় সবুজের অপরুপ সমাহার। মাঠে মাঠে হাওয়ায় দুলছে আমন ধানের সবুজপাতা, আর আনন্দে দুলছে কৃষকদের মন। মাঝে মধ্যে বৃষ্টিপাত হলেও আমন আবাদের জন্য আবহাওয়া অনুকুলে তাই ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার সরকার জানান, উপজেলা কৃষি অফিসের মাঠপর্যায়ে উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তাগন কৃষকদের সময় মত পরামর্শ দেয়ায় আমন ক্ষেতে এবার রোগবালাই লক্ষ করা যাচ্ছে না। ধানগাছে রোগবালাই না থাকায় এবারও বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *