পদ্মায় পানি বেড়ে দৌলতপুরে ডুবেছে ৩৫ গ্রাম

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি : ভারত ফারাক্কা বাঁধের সব কটি গেট খুলে দেয়ায় পদ্মা নদীতে পানি বাড়ছে। পানিতে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ও রামকৃঞ্চপুর ইউনিয়নের ৩৫টি গ্রাম তলিয়ে গেছে। ফলে, উপজেলার পদ্মা নদীর তীরবর্তী চিলমারী, রামকৃঞ্চপুর, ফিলিপনগর ও মরিচা ইউনিয়নের প্রায় ১২ হাজার পরিবার জলবদ্ধ হয়ে পড়েছেন। তারা খাদ্য ও খাবার পানির সংকটে ভুগছেন।

বন্যার কারণে দুটি ইউনিয়নের সকল প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার কুষ্টিয়ার পানি উন্নয়ন বোর্ড দেয়া তথ্যে জানা গেছে, হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে বিপৎসীমার দুই সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। পানি প্রবাহ আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে বলে তারা জানিয়েছেন।

রামকৃঞ্চপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, পদ্মা নদীতে আকস্মিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চিলমারী ও রামকৃঞ্চপুর ইউনিয়নের দুই হাজার হেক্টর জমির আমন ধান, মাশকলাই ও বাদাম বীজতলা তলিয়ে গেছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুর রহমান জানান, মঙ্গলবার রামকৃঞ্চপুর ইউনিয়নের বানভাসীদের মধ্যে ৭০০ প্যাকেট এবং চিলমারী ইউনিয়নে ৮০০ প্যাকেট চাল, ডালসহ শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রাথমিকভাবে খাদ্য সহায়তা দেয়ার জন্য পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরির কাজ চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *