নড়াইলে লাখো মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে ব্যতিক্রমী আয়োজনে ভাষা শহীদদের স্মরণ

নড়াইল প্রতিনিধি ॥ নড়াইলে শুক্রবার সন্ধ্যায় লাখো মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে ব্যতিক্রমী আয়োজনে ভাষা শহীদদের স্বরণ করা হয়েছে।“অন্ধকার থেকে মুক্ত করুক একুশের আলো”- এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মৌলবাদ, কুশিক্ষা, পশ্চাদমুখিতা আর সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর প্রত্যয় নিয়ে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ মাঠে (কুরিরডোব মাঠে) আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও ভাষা শহীদদের স্মরণ করলো নড়াইলবাসী। মোমবাতি প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠানে হাজারো মানুষ বিশেষ করে নারী ও শিশু ভীড় জমায়।
সব অন্ধকারকে পরিহার করে আলোর পথে চলার দৃপ্ত শপথ ঘোষনা করেন অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দ ও দর্শনার্থীরা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও অমর একুশ উদযাপনে বুধবার সন্ধ্যা লাগার সঙ্গে সঙ্গে লাখো মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়।এই সাথে ভাষা দিবসের ৬৯ তম বার্ষিকীতে ৬৯টি ফানুষ ওড়ানো হয়। কুড়িরডোব মাঠে লাখো মোমবাতি একসাথে জ্বলে উঠার সময় ‘আমার ভায়ের রক্ত রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারী, আমি কি ভুলিতে পারি’ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের শিল্পীরা এই গান গাইতে থাকেন।
একুশের আলো, নড়াইল এই ব্যতিক্রমী ও নান্দনিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। লাখো মোমবাতি দিয়ে ৬ একরের বিশাল কুরিরডোব মাঠ প্রজ্জ্বলন, স্মৃতি সৌধ, শহীদ মিনার, জাতীয় ফুল শাপলা, আল্পনা ও বাংলা বর্ণমালা দিয়ে মাঠ সাজানো হয়।দেশের বিভিন্নস্থান থেকে দেখতে আসা দর্শনার্থীরা খুশি এ অপরুপ দৃশ্য দেখে।দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভীড়ে মাঠে তিল ধারনের ঠাঁই ছিল না।
মোমবাতি প্রজ্জ্বলন দেখতে আসা নড়াইল রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুলের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র ফারদিন শাহরিয়ার জানায়, অনেক মোমবাতি এক সঙ্গে জ্বালিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও ভাষা শহীদদের স্বরণ করতে দেখে খুব ভালো লেগেছে।বিভিন্ন শ্রেণী পেশার একাধিক নারী জানান, নিজে আনন্দ উপভোগ করতে এবং বাচ্চাদের আনন্দ দিতে ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছি।
শুক্রবার সন্ধ্যায় কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা। এসময় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারন সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলু, একুশের আলো নড়াইলের সভাপতি প্রফেসর মুন্সি হাফিজুর রহমান, নাট্যব্যক্তিত্ব কচি খন্দকার, একুশের আলোর যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক ও জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুন্ডুসহ বিভিন্ন শ্রেনীপেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়া দিনটি উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা, গণসঙ্গীত, আবৃতি, নান্দনিক পাঠ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মাছরাঙ্গা টেলিভিশন মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের লাইভ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। উল্লেখ্য, নড়াইলে মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের ব্যতিক্রমী এ আয়োজন ১৯৯৭ সালে সুলতান মঞ্চ চত্বরে প্রথম শুরু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *