‘জাতিসংঘ মেডেল’ পেলেন ২৯ নারীসহ ১৩৯ বাংলাদেশী পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ‘জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কর্মকাণ্ডে গত ১৯ মাসের অসামান্য অবদানের জন্য ২৯ জন নারী শান্তিরক্ষীসহ ১৩৯ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে ‘জাতিসংঘ মেডেল’ দেয়া হয়েছে।

সুদানের দারফুর প্রদেশের এল ফাশের লজিস্টিক বেজের বঙ্গবন্ধু ক্যাম্পে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের (উনামিড) পুলিশ কম্পোনেটের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার এবং পুলিশ চিফ অব স্টাফ জেনারেল আমাদো মান্নাহ ১০ জানুয়ারি প্রধান অতিথি হিসেবে প্যারেড পরিদর্শন করে শান্তিরক্ষীদের মেডেল পরিয়ে দেন।

সকল প্রতিকূলতা অতিক্রম করে ব্যানএফপিইউ-১১ এ অনন্য সাধারণ অবদানের জন্য অভিনন্দন ও প্রশংসা করেন প্রধান অতিথি আমাদো মান্নাহ। তিনি বলেন ‘জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতারেসের পক্ষ থেকে অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ পদক প্রদানের ঘোষণা করছি।

আপনারা জাতিগত সংঘাতপূর্ণ নিয়ালা, কুটুম, এল ফাশের এলাকায় অনেক সাধারণ জনগণ বিশেষ করে নারী ও শিশুদের জীবন বাঁচিয়েছেন। করোনা মহামারির মধ্যেও দায়িত্ব পালনে অবিরাম প্রচেষ্টা ও কর্মতৎপরতা সশ্রদ্ধচিত্তে স্মরণ করছি।’

তিনি ব্যানএফপিইউ-১১ রোটেশনের নানা আর্থ-সামাজিক কার্যক্রমকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। এছাড়াও তিনি ব্যানব্যাট-এর সঙ্গে সংযুক্ত ফিমেল অ্যানগেইজমেন্ট টিমের অসাধারণ কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করে বলেন, ব্যানএফপিইউ-১১ এর নারী শান্তিরক্ষীরা সুদানের দারফুরে শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছেন।

কমান্ডার মোহাম্মদ আব্দুল হালিম তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে ২০১৯ সালের মে মাস থেকে চলমান রোটেশনের নানা কার্যক্রম সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরেন। ২০০৭ সাল থেকে চলমান এই মিশনে এটিই শেষ মেডেল প্যারেড অনুষ্ঠান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- মেডেল প্যারেড অনুষ্ঠানে সুদানের দারফুরে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত ঊর্ধ্বতন সামরিক, অসামরিক কর্মকর্তারা এবং সুদান গস পুলিশের ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা ও অন্যান্যরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *