‘ওপরে আল্লাহ, নিচে শেখ হাসিনা, মাঝে তদবির নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক : কিছুটা ব্যতিক্রমই বলা চলে। নিজ দপ্তরের অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর জানতে চান গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। জানান, প্রকাশিত সংবাদের ওপর ভিত্তি করে তিনি কাজ করেন। এখন পর্যন্ত ১২টি কমিটি হয়েছে।

মন্ত্রী এমনও জানিয়ে দিলেন, তদবিরে তিনি টলেন না। ওপরে আল্লাহ আর নিচে শেখ হাসিনা। মাঝামাঝি আর কেউ নেই যার কথা তাকে রাখতে হবে।

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, রাজউককে নির্দেশ দিয়েছি, বলেছি একটা বাড়িও ড্রপ হবে না। যদি কোনো মন্ত্রী-এমপির বাড়িও হয়, আমার নিজের কোনো আত্মীয়-স্বজনও হয় তার বাড়ির বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে গণপূর্তমন্ত্রীর এমন বক্তব্য আসে। তিনি বলেন, নতুন ঢাকায় যারা নিয়ম না মেনে বিল্ডিং নির্মাণ করেছেন, তাদের অনিয়মের বিল্ডিংগুলো ভেঙে ফেলতে হবে।

গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, যেটাকে কোনোভাবে রাখা যাবে না, সেটা যদি তারা (ভবন মালিক) ভাঙতে না চান, সেসব বিল্ডিং আমরা সম্পূর্ণরূপে বেআইনি ও ব্যবহার অনুপযোগী বলে সিলগালা করে দেব। ওই বিল্ডিং ব্যবহারও করতে দেব না। এই মন্ত্রী বলেন, এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের পর রাজউকের ২৪টি দলে কাজ করে এক হাজার ৮১৮টি বহুতল ভবনে অনিয়ম পেয়েছে।

‘এসব বাড়ির অনেক মালিক অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তি; ক্ষমতায়, রাজনীতিতে, অর্থে, তাদের সম্পর্কে রিপোর্ট করা হবে অনেকেই ভাবেননি, কারণ তারা এত পাওয়ারফুল। এসব বিল্ডিংয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছি, আপনারা আমাদের সাহায্য করেন’।

‘তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রাজউককে নির্দেশ দিয়েছি, বলেছি একটা বাড়িও ড্রপ হবে না। যদি কোনো মন্ত্রী-এমপির বাড়িও হয়, আমার নিজের কোনো আত্মীয়-স্বজনও হয়, ড্রপ হবে না, আইনকে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দিতে হবে’, বলেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *